সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

পোস্টগুলি

বাঙ্গালীর ইতিহাস আদি পর্বঃ ইতিহাসের ইঙ্গিত

অস্ট্রেলিয়ার সিডনি শহরের বৈশাখী মেলাটি পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের বাইরে পৃথিবীর বৃহত্তম বাঙালির মিলনমেলা। প্রতি বছরই মেলার জন্য অপেক্ষায় থাকি। এই বর্ষবরণের মেলাটি হয় অলিম্পিক পার্কের বিশাল এএনজেড স্টেডিয়ামে। এ উপলক্ষে শুধু সিডনি-ক্যানবেরাই নয়, অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে, এমনকি বহির্দেশ থেকেও বাঙলীরা আসেন সিডনিতে। প্রবাসে দুই বাঙলার মানুষ মিলে মিশে আনন্দে মেতে উঠেন। এতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। পশ্চিমবঙ্গ বা বাংলাদেশ থেকে আসেন নামি দামি শিল্পীরা। লোকে টিকেট কেটে মেলা দেখে। গোটা স্টেডিয়াম জুড়ে বিভিন্ন পণ্যের স্টল বসে। নানা রকমের সুস্বাদু খাবার, বই, পোশাক থেকে শুরু করে নানা প্রতিষ্ঠানের স্টল থাকে মেলা প্রাঙ্গণে। আমার প্রিয় স্টলগুলি হল বইয়ের। অ্যামাজন কিন্ডেলের ই-বুকের তালিকায় বাংলা বইগুলি এখনো যায়গা করে নিতে পারেনি। তাই বাংলা বইয়ের জন্য ছাপা বই-ই ভরসা। এবার মানে ২০১৮-র মেলায় অনেক গুলো বইয়ের মাঝে নজরে পড়ল নীহাররঞ্জন রায়ের 'বাঙালির ইতিহাস, আদি পর্ব'। মনে পড়ল নিজের ইতিহাস সম্বন্ধে বাঙালির অনুসন্ধিৎসাহীনতা দেখে,  নীরদ সি চৌধুরী বাঙালিকে বলেছিলেন আত্মবিস্মৃত জাতি। যাপিত জীবনের নির…
সাম্প্রতিক পোস্টগুলি

তোমার চলে যাওয়া

তোমার চলে যাওয়া, চলে যাওয়াই ছিল,  সুপর্ণা। ঠাণ্ডা মাথায়, সুপারি কিলারের দক্ষতায়, এক সমুদ্র ঘৃণা উগড়ে দিয়ে, সে তোমার অগস্ত্য যাত্রা। যাবতীয় ভালোবাসা ও অভ্যাস নষ্ট হতে দেখেও, বলা হোল না,  সুপর্ণা,  শুধু একটি বার ফিরে তাকাও প্রথম দেখার মুগ্ধতা নিয়ে...

শিলচর থেকে সিডনি

পিমুলওয়ে

জীবন-জীবিকার তাগিদে শৈশব-কৈশোরের শিলচর শহর থেকে ভারতের সিলিকন ভ্যালি বাঙ্গালুরু হয়ে বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী আমি। এই সুদীর্ঘ যাত্রাপথের পথের-পাঁচালি নিয়ে শিলচর থেকে সিডনি।

দক্ষিণ গোলার্ধের সুন্দরি সিডনি শহরের যে সার্বাবে আমার বাড়ি সেখানে এক সময়ে দাপিয়ে বেড়াত আদিবাসী মানুষেরা। যাদেরকে অ্যাবরিজিনাল বলা হয়। বর্তমান সময়ে এই এলাকাটা মূলত অভিবাসী ভারতীয় ও শ্রীলঙ্কান অধ্যুষিত। আদিবাসী কোথাও নজরে পরে না। কিন্তু এই এলাকার নামকরণে আদিবাসীদের ছোঁয়া রয়ে গেছে আজও। এই যেমন গিরাউইন, তুঙ্গাবি, উলুমুলু বা পিমুলুওয়ে সার্বাব। অ্যাবরিজিনাল ভাষায় ’গিরাউইন' মানে ফুলেদের দেশ, তুঙ্গাবি মানে জলের ধারের দেশ, উলুমুলু মানে ছোট্ট কালো ক্যাঙ্গারুর দেশ, ‘পিমুলুওয়ে' মানে 'পৃথিবী’। এই নান্দনিক নামগুলো শুনেই কৌতূহল হয় আদিবাসীদের জীবন ও ইতিহাস সম্বন্ধে।

২৬শে জানুয়ারি, ১৭৮৮ তে ইংরেজ ক্যাপ্টেন জেমস কুকের প্রথম নৌবহর নিয়ে অস্ট্রেলিয়াতে পদার্পণ করার মুহূর্তকে বলা যায় দেশটিতে পশ্চিমা ঔপনিবেশিকতার সূচনাকাল। তার আগে এখানে ছিল আনুমানিক ৫০০০০০ থেকে ৭৫০০০০ আদিবাসী। প্রায় ২৫০টি স্বতন্ত্র ভ…

একগুচ্ছ কবিতা

নীরবতা
সাদা কাগজের নীরবতায় লুকিয়ে থাকে যে বেদনা তাকে উপমা হিসেবে দাঁড় করিয়ে কাব্য লেখার ইচ্ছে আমার নেই। ইসলামোফোবিয়া-সেফ্রনাইজেশন নিয়ে গুরুগম্ভীর আলোচনা কিংবা সমালোচনায় নেই কোন উৎসাহ। নিশ্চিত মৃত্যু যেনেও কালো কালো মানুষেরা কেন রিকেটি নৌকো নিয়ে পাড়ি দেয় ম্যাডিটেরেনিয়ানের জলে তা নিয়ে ভাবুক অন্য কেউ। সীমান্তের কাঁটা তারে গুলি খেয়ে পরে ছিল যে ফেলানি তাঁর অভিশাপে ও আমার কিছু আসে যায় না। আমি বরং আমার কথা বলি। ডিনার টেবিলে রাখা আমার চিকেন বিরিয়ানির সুগন্ধ তোমাকে ক্ষুধার্ত করুক। এসো,তোমাকে দেখাই আমার অবকাশ যাপনের ওপেন অ্যালবাম। তোমার ক্ষুধার্ত আর প্রতিহিংসায় নীল হয়ে যাওয়া মুখচ্ছবি তখন আমার কাছে কবিতা হয়ে উঠবে। সাদা কাগজের নীরবতায় লুকিয়ে থাকা বেদনার মতো কবিতা।

জুন ২৭, ২০১৫
সিডনি, অস্ট্রেলিয়া

ইচ্ছে ডানা
‘*যে উড়ে চলেছে, সে কেউ নয়, কিছু নয় - সে কেবল কবি’- জয় গোস্বামী*

ইচ্ছে করলেই লেখা যেত,
একটি মন ভাল করা প্রেমের কবিতা।
অলঙ্কারে-অনুপ্রাসে, নরম মোমের আলোয়,
লেখা যেত একটি রোমান্টিক
ক্যান্ডেল লাইট ডিনারের মনোরম বিবরণ।

ইচ্ছে করলেই ঝিলের মতো শান্ত বালিকা,
সকল নীরবতার অবসান ঘ…

সাদা কাগজের নীরবতা

সাদা কাগজের নীরবতায় লুকিয়ে থাকে যে বেদনা তাকে উপমা হিসেবে দাঁড় করিয়ে কাব্য লেখার ইচ্ছে আমার নেই। ইসলামোফোবিয়া-সেফ্রনাইজেশন নিয়ে গুরুগম্ভীর আলোচনা কিংবা সমালোচনায় নেই কোন উৎসাহ। নিশ্চিত মৃত্যু যেনেও কালো কালো মানুষেরা কেন রিকেটি নৌকো নিয়ে পাড়ি দেয় ম্যাডিটেরিয়ানের জলে তা নিয়ে ভাবুক অন্য কেউ। সীমান্তের কাঁটাতারে গুলি খেয়ে পরে ছিল যে ফেলানি তাঁর অভিশাপে ও আমার কিছু আসে যায় না। আমি বরং আমার কথা বলি। ডিনার টেবিলে রাখা আমার চিকেন বিরিয়ানির সুগন্ধ তোমাকে ক্ষুধার্ত করুক। এসো , তোমাকে দেখাই আমার দামি ক্যামেরাবন্দী অবকাশ যাপনের ওপেন অ্যালবাম। তোমার ক্ষুধার্ত আর প্রতিহিংসায় নীল হয়ে যাওয়া মুখচ্ছবি তখন আমার কাছে কবিতা হয়ে উঠবে। সাদা কাগজের নীরবতায় লুকিয়ে থাকা বেদনার মতো কবিতা।

ফেবু স্ট্যাটাস #২

এখানে ও বৃষ্টি হয়। আকাশ কাঁদে। শুধু শৈশবের সেই টিনের চালে, রিম-ঝিম বৃষ্টি পড়ার শব্দগুলো শুনতে পাইনা। পাইনা পরিচিত সেই ভেজা মাটির সোঁদাগন্ধ। বৃষ্টিভেজা লোডশেডিংয়ের রাতে আলো আধাঁরের খেলায় শুনা হয় না সুয়োরানী-দুয়োরানীর গল্প।

ফেবু স্ট্যাটাস #১

আমারা যে কেন এক সাথে থাকতে পারলাম না। বলেছিল এক সহোদর । আমরা এক এক জন, আলাদা আলাদা দ্বীপ। নিজের মতো করে সম্পন্ন মানুষ । কেন যে সামগ্রিক ভাবে সম্পন্ন হতে পারলাম না। বলে ছিল আরও একজন । বড়াইলের নীলিমার হাতছানিতে, বড়ম বাবার মেলা থেকে যারা এক সাথে কিনেছিলাম তালপাতার বাঁশি, সেই আমরা , পাহাড়, জঙ্গল , নদী , সাগর পেরিয়ে, ছিটকে পরেছি এখানে ওখানে। এই বিজ্ঞাপণী সময়ে, ফ্ল্যাট বাড়ির বেলকনিতে দাঁড়িয়ে, সম্পন্ন আমরা কী ভীষণ রকমের একা। উঁচু উঁচু দালান বাড়ির, ছোট ছোট ঘরে, প্রতি রাতে উঠে আসে আমাদের সম্মিলিত দিনের কোরাস । জিরি, চিরি, বরাক, সুরমার গ্রন্থনায় সে আমাদের নিজস্ব ভোর ।